Sunday , February 24 2019
Home / শিক্ষা / এনটিআরসিএ’র জরুরি বিজ্ঞপ্তি
এনটিআরসিএ’র জরুরি বিজ্ঞপ্তি
এনটিআরসিএ’র জরুরি বিজ্ঞপ্তি

এনটিআরসিএ’র জরুরি বিজ্ঞপ্তি

নবাববার্তা ডেস্কঃ

সুপারিশপ্রাপ্ত নিবন্ধনধারীদের ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর উদ্দেশ্যে জরুরি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ। রোববার ওই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে সংস্থাটি।

এতে বলা হয়েছে, ‘এনটিআরসিএ কর্তৃক পত্রিকায় গণবিজ্ঞপ্তি প্রদান করে সারাদেশের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হতে শূন্যপদ/সৃষ্টপদে চাহিদার ভিত্তিতে ২৪/০১/২০১৯ তারিখে ৩৯,৩১৭ জন শিক্ষক মেধাতালিকার ভিত্তিতে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়। এনটিআরসিএ কর্তৃক সুপারিশকৃত শিক্ষকদের এক মাসের মধ্যে নিয়োগ প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রতিষ্ঠান প্রধানকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়। এনটিআরসিএ কর্তৃক সুপারিশকৃত শিক্ষকদের যোগদানের ক্ষেত্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন বাবদ অর্থ দাবি করে তাদের যোগদানে বাধা প্রদানসহ নানাভাবে হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে-যা সম্পূর্ণ বিধিবর্হিভূত। এনটিআরসিএ কর্তৃক সুপারিশকৃত শিক্ষকদের নিকট থেকে কোনো অর্থ দাবি করার সুযোগ নাই।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, ‘জনবল কাঠামো-২০১৮ এর ১৮.১(ঘ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ‘প্রতিষ্ঠান কর্তৃক এনটিআরসিএ তে শিক্ষক/কর্মচারীর চাহিদা দিলে, উক্ত পদে এনটিআরসিএ কর্তৃক নির্বাচিত/মনোনীত শিক্ষক/কর্মচারীকে নিয়োগ দিতে হবে। প্যাটার্ন অতিরিক্ত চাহিদা দিলে উক্ত শিক্ষক/কর্মচারীর শতভাগ বেতন প্রতিষ্ঠান থেকে নির্বাহ করতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটলে প্রতিষ্ঠান প্রধানের বেতন-ভাতা স্থগিত/বাতিল করা হবে এবং পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে’।

এনটিআরসিএ কর্তৃক সুপারিশকৃত শিক্ষকদের নিকট থেকে কোনো অর্থ দাবি করাসহ যোগদানের ক্ষেত্রে কোনো হয়রানি করার অভিযোগ প্রমাণিত হলে জনবল কাঠামো-২০১৮ এর ১৮.১(ঘ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠান প্রধানের বেতন-ভাতা স্থগিত/বাতিল করা হবে এবং পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এর আগে ‘এমপিও পদে আবেদন করেও সুপারিশ পাওয়ার পর দেখাল গেল পোস্টটি নন এমপিও’ এ বিষয়ে করণীয় কি জানতে চাইলে এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান আশফাক হুসেন বলেন, প্রতিষ্ঠান প্রধান এমপিও ঘোষণা করে উনার রিকুইজিশন দিয়েছে। সেটা আবার উপজেলা শিক্ষা অফিসার যাচাই করে কারেক্ট পেয়ে আমাদের কাছে দিয়েছে, সো আমরা নিয়োগ করছি। এখন ওরা জয়েন করতে গিয়ে দেখেন এটা নন এমপিও। এখানে কিন্তু দুইটি জিনিস আছে। কেউ কেউ আন্দাজি বলে, মৌখিকভাবে কেউ কেউ বলে নন এমপিও।

তিনি এমন সুপারিশপ্রাপ্তদের উদ্দেশে বলেন, আমাদের এখানে যে ঘোষণা আছে সেটা ধরে নিয়ে জয়েন করেন। যদি এটা না থাকে তাহলে এমপিও নীতিমালার ১৮(ঘ) তে ভালোমত লেখা আছে কেউ যদি মিথ্যা বা ভুল ঘোষণা দিয়ে রিকুইজিশন দেন তাহলে রিকুইজিশনে যা লেখা আছে ওই ভাবে ট্রিট করে ওই লোককে বেতন দিবেন। সেখানে আরো এগ্রিসিভলি লেখা আছে যে, যদি তা না করা হয় তাহলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের বেতন বন্ধ করা হবে, এমনকি কমিটি বিলুপ্ত করতে যা লাগে সরকার পদক্ষেপ নিবে। এইসব কথা লেখা আছে সেই ধারায়।

তিনি আরো বলেন, রিকুইজিশনে যেই পদে এমপিও লিখা আছে, ওই পদে কেউ জয়েন করলে তাকে এমপিওর মতই তাকে ট্রিট করতে হবে। তার এমপিও কেমনে উনি প্রসেস করবে দে হ্যাজ টু বি ডান টু মাউশি। মাউশির প্রতিনিধি উপজেলা শিক্ষা অফিসার সেটাকে এমপিও হিসেবে এনড্রোজ করছেন। উনি যেহেতু মাউশির লোক তাহলে তো এটাকে অস্বীকার করার সুযোগ নেই। আমি এজন্য কোনো প্রবলেম দেখছি না।

এনটিআরসিএ চেয়ারম্যানের মতে, কেউ যদি যোগদান করতে গিয়ে দেখে এমপিও ছিলো এটা এখন নন এমপিও তাহলে যেন যোগদান না করে যেন চলে না আসে। যদি সে না জয়েন করে তাহলে চাকরিটা চলে গেলো। আর যদি সে জয়েন করে তার লিগ্যাল একটা রাইট থাকে যে এমপিও হবে। স্কুল যদি বেসরকারি হয় সেটা সরকারিকরণ তো হবেই হবে এক সময় না একসময়।

এনটিআরসি থেকে যিনি নিয়োগ পেলেন তাকে কোটাধিকার দেয়া হবে কিনা? তিনি বলেন, অবশ্যই দেয়া হবে, কারণ এমপিও বলছে তাকে এমপিওতে দিছে। যাকে আপনি এমপিও প্রতিশ্রুতি দিয়ে দিলেন তাকে তো নন এমপিও ট্রিট করার সুযোগ নাই। এই এমপিও ডিল করবে মাউশি ও মন্ত্রণালয়। আমি এর অথরিটি নই।

About Tutul Rabiul

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!